Posts

Featured Post

প্রাথমিক কারন খুব সরল

বঙ্গবন্ধুকে ঘৃণা করার প্রাথমিক কারন খুব সরল - তিনি পাকিস্তানকে দুইভাগ করেছেন। ধর্মের ভিত্তিতে সৃষ্ট একটা দেশকে দুইভাগ করাতে পাকিস্তান প্রেমিকদের কাছে তিনিতো ঘৃণার পাত্রই হবেন। ধারনা করা হয়েছিল ১৯৪৭ সালে সৃষ্ট পাকিস্তান সৌদি আরবের সাথে মিলে ইসলামের ঝান্ডা উড়াবে। কিন্তু ১৯৫২ সালেই স্পষ্ট হয়ে যায় এ ঝান্ডা মুখ থুবড়ে পরতে যাচ্ছে; কালের আবর্তনে পরিস্কার হয়েছে পাকিস্তান ইসলামের ঝান্ডা তো উড়াতে পারেইনি বরং কলঙ্ক রুপে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে।

পাকিস্তানের রাজনীতিবিদদের কুটিলতা এবং পাকিস্তানি আর্মির বর্বরতা এসব পাকিস্তান প্রেমিকরা অস্বীকার করতে পারে না তাই তাদের অস্বস্তি হয় এই বিচ্ছেদে, এই বিভক্তিতে। এই পাকিস্তান প্রেমিকদের মাথায় ঢোকে না যে ইসলাম আর পাকিস্তান এক নয়, তাদের মাথায় ঢোকে না যে ইসলাম ও সৌদি আরবও এক নয়; এদের মস্তিস্কে ঢোকানো হয়েছে যে এই তিনের মিলনেই ইসলামী জোস, ঈমানি জোস তাই পাকিস্তানের যে কোন শোচনীয় পরাজয়কে তারা ইসলামের পরাজয় হিসেবে দেখে। ১৯৭১ সালের পাকিস্তানের শোচনীয় পরাজয়কেও তারা ইসলামের পরাজয় হিসেবে দেখে আর যেহেতু এইসব পাকিস্তানি প্রেমিকেরা জেনেটিক ভাবেই গোড়া, তারা বঙ্গবন্ধুকে ঘৃণা করে …

Bomb Attacks in Sri Lanka: Who, How, Why

Image
Sri Lankan police were on high alert for last two weeks, fearing that suicide bombers, supposedly from National Thowheeth Jama’ath, might strike prominent churches during the Easter. Two foreign intelligence agencies also reported in early April that radical Muslims those came back from Syria are planning to carry out suicide attacks at prominent churches and high commissions in Colombo. 
The police increased security around important establishments including churches but could not prevent the deadliest attack in the history of the country since the end of the civil war in 2009.

Earlier this year, in January, the police seized a cache of explosives and detonators and arrested four members of National Thowheeth Jama’ath following an intelligent information. This time the perpetrators slipped through.
At least 208 people were killed and 450 were hurt in the explosions at churches and high-end hotels on Sunday, 21 April. Perpetrators were all Sri Lankan nationals. The founder of Nationa…

কেন ১৯৭১ সালের ২৬ মার্চ বাঙালিকে হাতে তুলে নিতে হয়েছিল অস্ত্র? স্বাধীনতা সংগ্রামের প্রেক্ষাপট কি ছিল?

১৭৫৭ সাল - ব্রিটিশরা ভারতীয় উপমহাদেশের রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা দখল করে নেয়

১৯৪৭ সাল - ব্রিটিশরা ভারতীয় উপমহাদেশ ছেড়ে চলে যায়; সৃষ্টি হয় দুই দেশ - মুসলমানদের জন্য পাকিস্তান ও হিন্দুদের জন্য ভারত

১৯৫২ সাল - ভাষা আন্দোলন

১৯৬৬ সাল - ছয় দফা দাবী

১৯৬৯ সাল - গণআন্দোলন। প্রেসিডেন্ট আইয়ুব খানের পতন। ইয়াহিয়া খানের আগমন

১৯৭০ সাল - সাধারণ নির্বাচন। আওয়ামী লীগ জয়ী হয় ১৬৭ টি আসন নিয়ে।

১৯৭১ সাল - 
মার্চ ১ - জাতীয় পরিষদের অধিবেশন স্থগিত হলো

মার্চ ৭ - বঙ্গবন্ধু ঘোষণা করলেন - এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম।

মার্চ ১৫ - প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া খান ঢাকায় আসলেন বঙ্গবন্ধুর সাথে আলোচনা করতে

মার্চ ২৫ - সেনাবাহিনী অপারেশন সার্চলাইট শুরু করে

মার্চ ২৬ -পাকিস্তান সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে সশস্ত্র সংগ্রাম শুরু করে বাঙ্গালীরা


তথ্য উপাত্ত
লাহোর প্রস্তাব হচ্ছে ভারতীয় উপমহাদেশে বসবাসকারী মুসলিমদের জন্য একটি পৃথক রাষ্ট্রের দাবী জানিয়ে উত্থাপিত প্রস্তাবনা। ১৯৪০ সালের ২৩ মার্চ পাকিস্থানের লাহোরে  নিখিল ভারত মুসলিম লীগের সম্মেলনে সম্মেলনে শেরে বাংলা এ কে ফজলুল হক কর্তৃক প্রস্তাবটিই …

দিল্লীর নিজামউদ্দিন আউলিয়া

Image
দিল্লীর প্রবীণরা উর্দু ও হিন্দীর মিশ্রণে বলেন যে ভারতীয় উপমহাদেশে যে কজন সাধক এসে সুফি মতবাদকে জনপ্রিয় করেছেন নিজামউদ্দিন আউলিয়া তাদে মধ্যে পথিকৃৎ। চিশতিয়া তরিকার সুফি সাধক ছিলেন তিনি। তারা বলেন যে তৎকালীন দিল্লীবাসীর উপর ব্যক্তিত্বের জাদু নিয়ে নিজামউদ্দিন আউলিয়া প্রবল প্রভাব বিস্তার করেন এবং পার্থিব বিষয়ে তাদের দৃষ্টিভঙ্গিতে পরিবর্তন আনেন। নিজামউদ্দিন আউলিয়া নাকি বলতেন খোদার শ্রেষ্ঠ সৃষ্টি মানুষ আর তাই মানুষকে ভালোবাসলেই খোদা সবচেয়ে বেশি খুশি হন। 

স্থানীয়দের সাথে কথা বলে বুঝা গেল, ছোট বেলায় মা খালাদের মুখে ইসলামের গুণগান সম্বলিত গল্পসমূহে যে নিজাম ডাকাতের উপস্থিতি ছিল যেখানে তিনি ৯৯জন লোক খুন করার পর আওলিয়া হিসাবে খ্যাতি লাভ করেছিলেন সেটা আদতে অন্যান্য ধর্মীয়  কল্পকাহিনীর মতনই বানানো; রূপকথা। নিজামউদ্দিন আউলিয়া উঠতি বয়সেই সুফি মতবাদ লাভ করেছিলেন এবং তা চর্চা করে আধ্যাত্মিকতা লাভ করেছিলেন। তিনি আদতে কোন খুন করেননি।

নিজামউদ্দিন আউলিয়ার প্রকৃত নাম মোহাম্মদ। বংশগত দিক থেকে তিনি ছিলেন হযরত আলী (রা.) এর উত্তরসূরি। তার মৃত্যুর পর ফিরোজ শাহ তুঘলক কবরে সমাধি-সৌধ নির্মাণ করলেও পরে তা অবলুপ্ত …

আমার ভাললাগা, আমার আশাবাদ ও আগামীর এক গল্প

Image
আমার বড় খালু এয়ার কমোডর চৌধুরী  সি এ মান্নানের সাথে আমার একটা বন্ধুত্ব গড়ে উঠেছিল। অসম বন্ধুত্ব।

রক্ষণশীল পরিবারের ভেতর এবং আদব কায়দা লেহাজ মেনে চলা এক পরিমণ্ডলে, গুরুগম্ভীর এবং সরকারের উর্ধতন কর্মকর্তার সাথে ভার্সিটি পড়ুয়া ভাগনার বন্ধুত্ব হয়ে যাওয়া বেশ অস্বাভাবিক।

কিন্তু পরিবারের সবার চোখ এড়িয়ে আমাদের দুইজনের বন্ধুত্ব হয়েছিল।

যাদের সাথে আলাপচারিতায় জ্ঞ্যানের পরিধি বাড়ে, আমি তাদের কাছে ছুটে যেতাম কিট-পতঙ্গ যেমন ছুটে যায় আলোর দিকে। বড় খালু ছিলেন তেমন এক আলো।

আমার বইয়ের 'তিন বন্ধু ও শেখ মুজিব' নামক গল্পে বড় খালুর ছায়া আছে। গল্পের ন্যারেটর যে শিক্ষকের কথা উল্লেখ করেছে, যার কাছ থেকে ন্যারেটর দিকনির্দেশনা নিতে অভ্যস্ত, সেই শিক্ষকের ক্যারেক্টারটিতে আমার বড় খালুর ছায়া রয়েছে। এবং 'তিন বন্ধু ও শেখ মুজিব' গল্পের কিছুটা খালুর সাথে বিভিন্ন সময় হওয়া আলাপচারিতার মাঝ থেকে উঠে এসেছে।



আমি তখন বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র। খালু থাকতেন উত্তরায়। আমি মাঝে মাঝে চলে যেতাম তার বাসায়। তার ব্যক্তিগত লাইব্রেরি থেকে বই আনতাম, পড়তাম এবং ফেরত দেবার সময় সেই বই নিয়ে তার সাথে কথা বলতাম।

২০…

Three iconic songs - We didn't start the fire, We will rock you and Blowin' in the wind

Image
Singer and songwriter Billy Joel was at a turning point of his life in 1989. He turned 40 that year and was in the midst of professional instability after completing an energetic but wired tour of the Soviet Union and sacking his manager for fraud. He also stated recording a studio album that year. During the recording, he was having a conversation in the studio with a 21 year old person where the young man illustrated how hard it is for their generation in 1980s to cope with the pressure compared to the older generations. He suggested that it was much more difficult growing up in the 1980s than the 1960s or in the 1970s. Billy Joel, who was and is a history buff, was surprised by the young man's lack of understanding about the turmoil of the 1950s, 1960s and 1970s. Joel on that day decided he will include a mini-history lesson in the album he was working on. There came the song - We didn't start the fire. Joel mentioned 117 important people, conflicts and historical events a…

১৯৭৭ সালের ২ অক্টোবরের ব্যার্থ সিপাহী বিপ্লব ও অতঃপর

Image
১৯৭৫ এর ৭ই নভেম্বর উত্থান হয়েছিল জিয়াউর রহমানের। সেদিনের পর থেকে তিনি বনে গিয়েছিলেন সারা দেশের হর্তাকর্তা। কিন্তু দিনকাল খুব একটা নির্বিঘ্ন কাটেনি তার; প্রায় প্রতিদিনই নতুন নতুন পরিস্থিতি মোকাবেলা করতে হয়েছে তাকে, মোকাবেলা করতে হয়েছে সামরিক বাহিনীর ভেতরে এবং বাইরে অসন্তোষ, মোকাবেলা করতে হয়েছে জাসদের আক্রোশ, মোকাবেলা করতে হয়েছে বেয়াড়া আমলাদের। ছিলেন ঠাণ্ডা মাথার মানুষ, ট্রেনিং পেয়েছিলেন পাকিস্তানী সামরিক বাহিনীতে, ১৯৬৫ ও ১৯৭১ এ যুদ্ধ করেছেন সামনা সামনি, আবার পাকিস্তানের গোয়েন্দা দপ্তরেও বহু বছর কাজ করেছেন।  এসবের অভিজ্ঞতা দিয়ে বেশ সফল ভাবেই তিনি অসন্তোষ,আক্রোশ, বেয়াড়াপনা সামাল দিচ্ছিলেন। ১৯৭৭ সালের এপ্রিল মাসের মধ্যেই রাষ্ট্রিয় তিনটি প্রধান পদ জিয়াউর রহমান নিজের করে নিয়েছিলেন - সেনাবাহিনী প্রধান, রাষ্ট্রপতি এবং প্রধান সামরিক আইন প্রশাসক ( চীফ মার্শাল'ল অ্যাডমিনিস্ট্রাটর )। তিনিই সর্বেসর্বা। এপ্রিল মাসে প্রেসিডেন্ট হয়েই তার প্রথম কাজ গুলোর একটি ছিল বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবারের হত্যাকারী অফিসারদের কাউকে কাউকে সেনাবাহিনীর চাকরীতে বহাল করা এবং কাউকে কাউকে বিভিন্ন দেশের দুতাবাসে চাকরী…

বুকে গুলি করসেন না মাথায়?

Image
১৯৭৫ সালের বঙ্গবন্ধু হত্যা, সামরিক অভ্যুত্থান ও পাল্টা অভ্যুত্থান ইতিহাসে, লেখালিখিতে, তর্ক -বিতর্কে প্রবল প্রতাপে বিচরন করে।  ১৯৮১ সালের জিয়াউর রহমান হত্যাকাণ্ডও একরকম তাই। কিন্তু  ১৯৭৬ সালে ফারুক-রশিদ-ডালিম গংয়ের ক্যু করার প্রচেষ্টা এবং ১৯৭৭ সালের বিমানবাহিনীর সৈনিকদের করা বিদ্রোহ নিয়ে খুব একটা কথাবার্তা, লেখালিখি হয় না। বাংলাদেশের ইতিহাসে ১৯৭৫ বড় ছেলে, ১৯৮১ সেজ ছেলে এবং ১৯৯০ ছোট ছেলে। মেঝ ছেলে ১৯৭৭ মুখচোরা, কোথাও তার উচ্চবাচ্য নেই। তাই অবাক হয়েছি যখন দেখলাম দেশের অন্যতম প্রধান চলচ্চিত্রকার মোস্তফা সরয়ার ফারুকী সেই ইতিহাসের একটা অংশ নিয়ে আনিসুল হকের আয়েশামঙ্গল উপন্যাস অবলম্বনে একটা টেলিফিল্ম তৈরি করেছেন এবং তা দর্শকদের মাঝে প্রচণ্ড অগ্রহ তৈরি করেছে।

১৯৭৭ সালে সেনাবাহিনীর সিগন্যাল ও সাপ্লাই কোরের সৈনিকরা এবং বিমানবাহিনীর সৈনিকরা যে বিদ্রোহ করে, তাতে তারা বিদ্রোহের প্রথম প্রহরেই তেজগাঁও বিমানবন্দরে ১১ জন অফিসার ও এক অফিসারের ১৬ বছরের ছেলেকে গুলি করে হত্যা করে। নিশ্চিত ভাবেই সে প্রহরে ফিরে এসেছিল '৭৫ এর ৭ নভেম্বরের রক্তনেশা - অফিসারের রক্ত চাই, সৈনিক-সৈনিক ভাই ভাই। কিন্তু সরকার (…